বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ১১:২২ পূর্বাহ্ন

“জয় বাংলা কি করে এলো”

আহমদ মাজহারুল হক / ৫২২ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১২:২৪ অপরাহ্ণ

কালের ধারায় হারিয়ে যায় অনেক শব্দ অনেক কথা। আবার ফিরে আসে। আবার আগুন ধরায় মনে। বিপ্লব ঘটে পৃথিবীতে। একসময় অনুপ্রাণিত শব্দ ছিলো “জিন্দাবাদ”।আর তা পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তান থেকে আগত শব্দ। এখন তার কি অবস্থা? কে ডাকে অমুন করে! এ যুগের এ দেশের মানুষ তা ভূলে গেছে। যেমন এক সময় বলা হতো ইয়া আলী! ইয়া আলীও বলা ঠিক না কারণ তা একজন ব্যক্তি বিশেষ বটে। যিনি স্রষ্টা তিনিই শক্তির মালিক। যাইহোক।

এখন সবার মুখে, সবাই বলে ” জয় বাংলা” জয়জয়কার, বাংলার জয়। এই ” জয় বাংলা” ধ্বনি মুক্তিযোদ্ধাদের মনে সাহস জোগাতো। এভাবেই মানুষ নতুন করে শিখে। যা আমাদের জাতীয় স্লোগানও বটে। তাহলে চলুন না যাই ফিরে, এই ভাষার মাসে কি করে আসলো আমাদের সাংস্কৃতিতে। কি করে হাজার বছররে বুনোনে গেঁথে গেলো জয় বাংলা। তার সাথে জয় বঙ্গবন্ধু।

জানা যায়, এই শব্দের মূল যিনি প্রথম ব্যবহার করেন তিনি আর কেউ নন, আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম।

ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের বিপ্লবী নেতা ছিলেন মাদারীপুরের স্কুল শিক্ষক পুর্ণচন্দ্র দাস। যিনি
ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের জন্য জেল-জুলুম-নির্যাতনের শিকার হন। তার আত্মত্যাগ, তার স্বজাত্যবোধে মুগ্ধ হয়ে পূর্ণচন্দ্র দাস মহাশয়ের কারামুক্তি উপলক্ষে কালিপদ রায় চৌধুরীর অনুরোধে জাতীয় কবি রচনা করেন ভাঙার গান কাব্যগ্রন্থের ‘পূর্ণ-অভিনন্দন’ (১৯২২) কবিতাটি। এই কবিতায় কাজী নজরুল ইসলাম প্রথম ‘জয় বাংলা’ শব্দটি ব্যবহার করেন। তার রচিত ‘বাঙালির বাঙলা’ প্রবন্ধেও জয় বাংলা পাওয়া যায়। ‘পূর্ণ-অভিনন্দন’ কাব্য থেকে উদ্ধৃত হল:-

“জয় বাঙলা”র পূর্ণচন্দ্র, জয় জয় আদি অন্তরীণ,
জয় যুগে যুগে আসা সেনাপতি, জয় প্রাণ অন্তহীন”।

এরপর সময় গড়িয়ে এই দেশের মুক্তির নায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭ মার্চ ১৯৭১ তারিখে প্রদত্ত তার বিখ্যাত ৭ মার্চের ভাষণে  সমাপ্ত করেছিলেন “জয় বাংলা” উচ্চারণ করে। এই ভাষণের পর থেকে এটি সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয়তা লাভ করতে শুরু করে। হয়তো, কোন মুক্তিযোদ্ধা “জয় বাংলা” স্লোগান দিয়ে, বোমা মারার সময় নিজেও দেশের জন্য জীবন দান করেছেন।

তবে এর কাছাকাছি শব্দ ছিল ফার্সি “জিন্দাবাদ”। তৎকালীন বর্ষীয়ান জননেতা মাওলানা ভাসনী ১৯৭১-এর শুরু থেকে “স্বাধীন বাংলা জিন্দাবাদ”, “আযাদ বাংলা জিন্দাবাদ” প্রভৃতি স্লোগান ব্যবহার করতেন। কিন্তু ১৯৭১-এর মার্চ থেকে জনসভা, মিছিলে এবং প্রচারণায় “জয় বাংলা” স্লোগানটি ব্যবহৃত হতে থাকে। ২৭ মার্চ ১৯৭১ সালে মেজর জিয়াউর রহমান অস্থায়ী কালুর ঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে যে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করেছিলেন তার শেষেও তিনি “জয় বাংলা” উচ্চারণ করেন। ১৯৭১ মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর  স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে বিভিন্ন সময় “জয় বাংলা” ব্যবহার করা হতো। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে ১১ এপ্রিল ১৯৭১ তারিখে প্রচারিত প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহ্‌মদের প্রথম বেতার ভাষণটি শেষ হয়েছিল‍ “জয় বাংলা, জয় স্বাধীন বাংলাদেশ‍” স্লোগান দিয়ে।

আর এই তো, সেদিন ২০২০ সালের ১০ মার্চ জয় বাংলা স্লোগানকে বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান হিসেবে গ্রহণের জন্য হাইকোর্ট রায় প্রদান করেন। বাংলাদেশ হাইকোর্টের বিচারপতি নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রায় দেন। এই হলো আমাদের “জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু “।

আহমদ মাজহারুল হক
লেখক : সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

Facebook Comments Box


এই ক্যাটাগরির আরো খবর
এক ক্লিকে বিভাগের খবর